প্রকৃতি পুরুষ মানুষকে যা সুবিধা দিয়েছে আর মেয়েদের শারীরিকভাবে হীনবল করার সঙ্গে এত রকম প্রাকৃতিক অসুবিধায় আপাদ মস্তক নিগড় পরিয়ে রেখেছে যে পুরোনো আপ্তবাক্য “বীরভোগ্যা বসুন্ধরা” প্রতিবাদযোগ্য মনে হলেও অস্বীকার করার উপায় থাকে না। এর ফলে আত্ম নিয়ন্ত্রণ বা সংযম পুরুষের অভিধানে না থাকলেও চলে যেখানে এই গুণগুলো নারীর সামাজিক, পারিবারিক এমনকি প্রাকৃতিক ভূমিকা পালনেও আবশ্যিক হয়ে পড়ে। ভূমিকায় শরীরবিদ্যা, মনস্তত্ত্ব ও সমাজ মনস্তত্ত্বের একাধিক পরীক্ষা নিরীক্ষা ভিত্তিক সিদ্ধান্ত হল পুরু হরমোন টেস্টোস...

ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্ট্রার (NPR) ও জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (NRC) : কিছু বাস্তব কিছু বিভ্রান্তি

নীতিগতভাবে একটি রাষ্ট্র যদি সিদ্ধান্ত নেয়, বহিরাগত অনুপ্রবেশ বন্ধ করবে বা তাতে রাশ টানবে, তাহলে দোষের কিছু নেই। কিন্তু আশঙ্কা থেকে যায় অনুপ্রবেশকারী সনাক্তকরণের পদ্ধতিটা নিয়ে। যদি মানবিক অবস্থান থেকে শরণার্থীদের আশ্রয়দান ও অনুপ্রবিষ্টদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়, নীতিগত দিক দিয়ে তাহলে তো আপত্তির কারণ থাকতেই পারে না। কিন্তু কে শরণার্থী আর কে অনুপ্রবেশকারী তার মাণদণ্ড নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই পারে। সেই বিতর্কের বাই...

চলো ভুলে যাই নিজেদের ইতিহাস 

চলো ভুলে যাই ঘাতকের তরবারি;

শুধু মনে রাখি আরোপিত মিত্রতা,

আর্তনাদকে চাপা দেওয়া দরকারি।

লাগানো আগুন-- আমি বলি দাবানল,

বনভূমি দায়ী, মশালের দোষ নয়।

বেশ ভুলে আছি অতীত পরম্পরা 

পুথিপত্রের ভস্মে জ্ঞানের লয়।

লুণ্ঠিত নারী অথবা জহরব্রত?

যদি হয়ে থাকে সে তো সনাতনী ক্ষয়।

এখনও বইছে রক্ত স্রোতের নদী--

চোখ বুজে ভাবি এমন কতই হয়!

চলো আঁকা ভুলি ভবিষ্যতের ছবি,

অন্ধকাররের কটাই বা রং হবে?

একখানি চোখ বাঁচানোর অভিলাষে

আর একখানি না হয় উপড়ে যাবে!

ReplyForward

          ঘোলা হাসপাতালে একদিন স্যালাইন আর দুটো ইনজেকশন .... কঠিন কেস বলে আরজি কর-এ পাঠানোর সুপারিশ করল। আরজি কর বলল পিজি। পিজিতে বিছানা ফাঁকা নেই। ছেলেটা খাবি খাচ্ছে। আপৎকালীন ওয়ার্ডের বাইরের বারান্দায় শয্যা বানিয়ে চিকিৎসার জন্য শুয়ে থাকা মানুষগুলো মৃত্যুর দিন গুনছে। মৃণালিনীর অবস্থা কি এদের মতো এতটা খারাপ? একমাত্র ছেলের চিকিৎসাটুকু করাতে পারবে না? প্রীতমের সঙ্গে আদালতে দস্তুর মতো লড়ে ছেলের দায়িত্ব জিতেছে। পোস্ট অফিসে এজেন্সি করে যা উপার্জন তাতে মা আর ছেলের চলে যাবে প্রমাণ দিয়ে তুমুল লড়াই।...

Please reload

সাম্প্রতিক পোস্ট
Please reload

Archive
Please reload

A N  O N L I N E  M A G A Z I N E 

Copyright © 2016-2019 Bodh. All rights reserved.

For reprint rights contact: bodhmag@gmail.com

Designed, Developed & Maintained by: Debayan Mukherjee

Contact: +91 98046 04998  |  Mail: questforcreation@gmail.com