চারদিকে কলরবের ধূম দেখতে পাচ্ছি। এটাকে বানান ভুল ভাবার আগেই ধরিয়ে দিই একটু। ধূম অর্থে ধোঁওয়ার কথাই বলছি। আগুন জ্বলে উঠতে গেলে কাঠকেও প্রস্তুত হতে হয়। সেই প্রস্তুতি কোথায় আমাদের? চিরকাল নিজের ভালো বুঝে আসা শামুক প্রজাতির মানুষ আমরা। সমস্যা টিকির কাছে আসি আসি করলেই টুপুত করে ঢুকে পড়ি খোলসের নিরাপদ আশ্রয়ে। তাই আমাদের আর আগুন হওয়া হয় না। ধোঁওয়া হয়েই জীবন থেমে যায়। 
এই যে এত রকমের ভয়ংকর ঘটনা ঘটে চলেছে, আমরা প্রতিবাদ করে চলেছি... কবিতা লিখছি... মিছিল করছি... কিছু কি হচ্ছে তাতে? হবে কেমন করে? একটা প্রতিবাদ গড়ে উঠতে না উঠতেই হাজির হচ্ছে নতুন ইস্যু, শুরু হচ্ছে নতুন প্রতিবাদ... আর পুরনো প্রতিবাদ চাপা পড়ে যাচ্ছে নতুনের অন্ধকারে। 
মজাটা হল, আমরা কেউই তলিয়ে ভাবছি না। হয় ভাবছি রাজনীতির চোখ দিয়ে, ধর্মের চোখ দিয়ে,নয়তো  ‘গেলো গেলো’ আর ‘জাস্ট পরোয়া করি না’ -এই দুই দলের মাঝখানে পড়ে খাবি খাচ্ছি। সদ্য ঘটে যাওয়া জাদু কি ঝপ্পি আন্দোলনের কথাই ধরা যাক। প্রকাশ্যে পিডিএ কতটা যুক্তিযুক্ত, তাই নিয়ে যুযুধান হয়ে পড়লেন দুই প্রতিপক্ষ। বয়স্করা অপসংস্কৃতি সহ্য করতে না পেরে দু ঘা দিয়ে বসলেন সন্তান সম ছেলেমেয়েদের গায়ে। তা বেশ। বড়রা তো শাসন করতেই পারেন। কিন্তু মুশকিল হল, শাসন করতে গিয়ে তাঁরা নিজেদের ‘রাখালের মাসী’ প্রমাণ করে বসলেন না কী! 
একটু ভেবে দেখুন তো! এই আপনিই তো চেয়েছেন,আপনার ছেলেমেয়ে ইংরেজি মাধ্যমে পড়ুক, গড় গড় করে ইংরেজি বলুক, ইংরেজি সিনেমা দেখুক, বিদেশে পড়তে যেতে না পারুক- নিদেন পক্ষে আধা বিদেশি হয়ে জীবন কাটাক! তবে সমস্যা কোথায়? সিনেমায় যে দৃশ্য দেখে আনন্দে ভেসে গেছেন, বাস্তবে সেই দৃশ্য যে এত পীড়াদায়ক হতে পারে, তা ভাবতে পারেন নি। কী? তাই তো? অথচ মজার কথা কী জানেন!  এই আপনারই বাড়িতে প্রতিদিন এক স্বামীর তিন বউ আর এক স্ত্রী এর তিন স্বামী টিভির পর্দায় এসে আপনার মনোরঞ্জন করে যাচ্ছে। তখন একবারও প্রতিবাদ করার কথা ভেবেছেন কী? ভেবেছেন এই অপসংস্কৃতির প্রতিবাদে টিভি বন্ধ করে দেওয়ার কথা? ভাবেন নি। আপনার ছেলেমেয়ে মাঠে খেলতে না গিয়ে বোকাবাক্সের সামনে বসে বসে কী দেখছে বলুন তো? একটু আধটু কার্টুন, এক খামচি সিনেমা, আপনার প্রিয় সিরিয়াল আর অঢেল বিজ্ঞাপন। 
টেলিভিশনের বেশিরভাগ বিজ্ঞাপনে যখন অকারণ যৌনতা প্রদর্শন হচ্ছে, আবালবৃদ্ধবনিতা একসাথে তাই বসে বসে দেখছে।  একটু বুঝিয়ে বলতে পারেন - একটা বিস্কুটের মচমচে হবার সাথে, ফলের রসের সুস্বাদু হবার সাথে, কোমোডের স্বয়ংক্রিয় হবার সাথে অর্ধনগ্ন নারীর কিসের সম্পর্ক! পারবেন না। আপনি শুধু তারিয়ে তারিয়ে এসব উপভোগ করেছেন।ওসব ভাবার সময় কোথায় আপনার! তাই শুধুমাত্র আপনার চোখের আরামের জন্য ক্রিকেট খেলার মাঠে স্বল্পবসনা চিয়ার লিডারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।খেলা্র পাশাপাশি একটু নিষিদ্ধ আনন্দের স্বাদ না থাকলে তো জীবনটাই জোলো। 
আচ্ছা, সংবাদপত্র তো সংবাদ পরিবেশনের জন্য। তার সাথে শিল্প সাহিত্য সম্পর্কে মানুষকে ওয়াকিবহাল করার জন্য। তবে সেখানে প্রতিদিন গুচ্ছগুচ্ছ অর্ধনগ্ন উত্তেজক ভঙ্গীর ছবি কেন বলতে পারেন? আপনার জন্যেই তো! আপনি লোভে পড়ে কিনবেন,পত্রিকা সার্কুলেট হবে হু হু করে। ধর্ম,কুসংস্কার এবং যৌনতার এ বাজারে সবচেয়ে বেশি কাটতি। দয়া করে বলবেন না যে আপনি পছন্দ করেন না। যত জোর কলমে সোশ্যাল মিডিয়ায় চেঁচামেচি করছেন,তার সিকিভাগ জোর গলায় যদি আপনার অপছন্দ জাহির করতেন... তবে একটি পত্রিকাও এইসব ছাপতে সাহস পেতো না মশাই। ভুলে যাচ্ছেন কেন? আপনি হলেন কনজিউমার, লক্ষ্মী। আপনাকে চটাতে সাহস করবে না কেউ। না সিরিয়াল ওয়ালা, না কাগজ ওয়ালা। 
অতএব কি বুঝলেন? আপনার আমার সন্তান খুল্লমখুল্লা যৌনতা দেখেই বড় হচ্ছে। আপনার গভীর রাতে সার্চ করা পর্ণসাইটের থ্রেড রয়ে যাচ্ছে গুগলে। এই প্রাপ্তবয়েসে তার দিকে চোখ পাকিয়ে তাকালে সে শুনবে কেন? ভাবুন সবাই, আরও একটু গভীর ভাবে ভাবুন। মনের বদলে শরীরকেই আসল বলে চিনতে শিখছে একটা গোটা প্রজন্ম। নিজের অজান্তেই হয়তো আপনি নিজেও। এই যে ক্রমাগত এত ধর্ষণ, শিশুও রেহাই পাচ্ছে না কেন? দায় কার? একা আপনার নয় নিশ্চয়। তবে প্রতিবাদ করার দায় আপনার। করেই দেখুন না।  

 

 

Share on Facebook
Share on Twitter
Please reload

জনপ্রিয় পোস্ট

I'm busy working on my blog posts. Watch this space!

Please reload

সাম্প্রতিক পোস্ট
Please reload

A N  O N L I N E  M A G A Z I N E 

Copyright © 2016-2019 Bodh. All rights reserved.

For reprint rights contact: bodhmag@gmail.com

Designed, Developed & Maintained by: Debayan Mukherjee

Contact: +91 98046 04998  |  Mail: questforcreation@gmail.com