প্রসঙ্গ : মেধা বনাম প্রতিভা

 

 

শিক্ষিত মানুষেরা কিংবা বুদ্ধিজীবী,সংস্কৃতিবান, কম বেশী সকল শ্রেনীর মানুষ প্রায়শঃই আলোচনা করে থাকেন Talent এবং Genius ব্যক্তিত্ব প্রসঙ্গনিয়ে। সাধারণত: অধিকাংশ মানুষই Talent (মেধা)Genius (প্রতিভা)-এর মধ্যে বিশেষ পার্থক্য দেখেন না; এদের ধারণা Talent যেন Genius-এর সমার্থক।অনুরূপে,মেধাবী অর্থেও Talent;অন্য নামে Genius.কিন্তু প্রকৃতপক্ষে Talent-এর অর্থ Genius নয়। বিষয়টি খতিয়ে দেখা দরকারi Talented ব্যক্তি বুদ্ধিমত্তায়চৌকস,সর্বত্রই সে তার পরিচয় রাখেন।স্কুল কলেজ University-তে সর্বত্র পুরোভাগে স্থান অধিকার করেন।প্রতিযোগিতা মূলক পরিক্ষায় রেকর্ড মার্ক কব্জা করেন।যে কোন প্রশ্ন ধাঁধাঁর উত্তর চট জলদি বলে দেন।চট পটে তুখোর,যাদের আলগা বা এলেবেলে ভাব নেই—আচরণ বা কথাবার্তায়।এই মেধাবী বা Talent ব্যক্তিপ্রচলিত সকল বিধি ব্যবস্থার সঙ্গে সামঞ্জস্য রক্ষা করে তার উপর নিজের বুদ্ধিমত্তার প্রকাশ ও প্রয়োগ সহজেই সর্বত্র করতে পারেন।তিনি সচেতন ভাবেজানেন,সকলের কাছে তার বুদ্ধিমত্তার প্রকাশ ও পরিচয় রেখে কিভাবে তিনি সফল হবেন।সাফল্যের প্রয়োজনে,তিনি সামঞ্জস্য ও সমঝোতা করে নেন; সকল অবস্থা পারিপার্শ্বিকতার সঙ্গে।Talented মানুষ তার শক্তির একটা মোটা অংশ নিয়ে কাজ করে থাকেন। তিনি এই অভ্যাসগত কারণে,সেই মেধা শক্তির দাস হয়ে পড়েএবং এই সচেতনতা সারা জীবন মুন্সীয়ানার সঙ্গে রক্ষা করে, জীবনে যথেষ্ট সাফল্য অর্জন করেন। সাফল্য অর্জনই তার পরম লক্ষ্য,সেজন্য যে কোনও কৌশলঅবলম্বন করতে তার না থাকে দ্বিধা, না থাকে দ্বন্দ। কারণ, তার বুদ্ধি শক্তির প্রয়োগ কৌশল থেকে কখোনই বিরত হতে চান না,সাফল্যই তার ঈণ্সীত,ইষ্ট তথাঈশ্বর স্বরূপ। বুদ্ধি সম্পন্ন ক্ষূরধার কোন মানুষকে জীবনে অসফল,অনুন্নত থাকার দৃষ্টান্ত বাস্তবে বিরল বললে অত্যুক্তি হয় না।                                       

        

          অপরপক্ষে,প্রতিভাবান ব্যক্তি বা geniusএর জীবন চলে জয় পরাজয়ের মিলিত স্রোতে,তবু পরাজয়ে সে প্রতিহত হতে জানে না,প্রতিকূল পরিস্থিতি জেনেওতার সঙ্গে আপোষ করতে পারেন না, আপন চিন্তা-চেতনা,তার আদর্শ তথা তার ধ্যান-ধারণা কাট ছাট করে প্রচলিত বিধি ব্যবস্থার সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতেওতিনি অপারগ। প্রতিভা সম্পন্ন ব্যক্তি কোন বিষয়ে সত্যের সন্ধান পেলে তাকে প্রতিষ্ঠিত করবার জন্য;কিংবা নতুন কিছু সৃষ্টি করার প্রেরণা পেলে,সেই সৃজনশীল কর্মে তার সামগ্রিক চেতনা নিয়ে আত্মার প্রচন্ড শক্তিতে তিনি ছুটে চলেন তার ধেয় পথে সমস্ত রকম বাধা বিপত্তি তুচ্ছ করে,আপোষহীনগতিতে। জিনিয়াসের একমুখীতা জন্ম নেয় আত্মার সমগ্র শক্তিকে সংহত(convergent)করে, সত্য প্রতিষ্ঠাই তার পরম লক্ষ্য,নতুন সৃষ্টিই তার আদর্শ এবং একমাত্রধেয়। 

 

এক্ষেত্রে কে তাকে তিরস্কার করল বা কে প্রশংসা করে পুরস্কার দিল; সে দিকে তার তাকানোর অবকাশ থাকে না। কোন বাধা নিষেধ বা চোখ রাঙানীতাকে আপোষের হাত ধরতে দেয় না। কোন ব্যর্থতাই তাকে দমাতে পারে না। আপোষহীন অজানা সন্ধানের তীব্র আকর্ষণ থেকে,creative pulse তাকে সর্বক্ষণউজ্জীবিত করে রাখে;বাধা বিপত্তি এলে বরং আরও শক্তি সংহত করে সুতীব্র বেগে এগিয়ে চলার প্রেরণা পায় সে। কারণ,জিনয়াস  তার শক্তির দাস নয়,সে তারশক্তির পরিচালক। প্রকৃতপক্ষে, জিনিয়াস অসাধারণ  শক্তি নিয়ে জন্মায়। 

 

 শীর্ষক নিবন্ধ আলোচনার ঊপসংহারে genius-এর তিতিক্ষা ও বৈশিষ্ঠ্যকে মর্য্যাদা দিয়ে নিষিক্ত.সত্যকে বোধ করি সঙ্গায়িত.করা চলে--A genius means who posses ability to withatand pain and suffering to the infinitive degree for adherence of any noble ideology till his life for its implementation towards welfare of mankind. So to say, the genius who stands always regarded to be great of his era forever.

Share on Facebook
Share on Twitter
Please reload

জনপ্রিয় পোস্ট

I'm busy working on my blog posts. Watch this space!

Please reload

সাম্প্রতিক পোস্ট
Please reload

A N  O N L I N E  M A G A Z I N E 

Copyright © 2016-2019 Bodh. All rights reserved.

For reprint rights contact: bodhmag@gmail.com

Designed, Developed & Maintained by: Debayan Mukherjee

Contact: +91 98046 04998  |  Mail: questforcreation@gmail.com