নেটে, সোশ্যাল মিডিয়ায় কাউকে আধার নম্বর নয়

22.08.2018

 

 

সম্প্রতি ট্যুইটারে নিজের বারো সংখ্যার আধার নম্বর প্রকাশ করেছিলেন ট্রাই-এর প্রধান আরএস শর্মা। একই সঙ্গে হ্যাকারদের তাঁর ‘ক্ষতি’ করার চ্যালেঞ্জও ছুঁড়ে দেন এই আমলা। এই পদক্ষেপের জন্য পরোক্ষে আরএস শর্মাকে ভর্ৎসনা করল আধার কর্তৃপক্ষ।     ইউআইডিএআই জানিয়েছে, এই ধরনের কার্যকলাপ আইন বিরোধী। কথা না শুনলে শাস্তিও হতে পারে।

 

   রীতিমতো লিখিত বিবৃতি দিয়ে আধার কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, ‘‘ইন্টারনেট বা সোশ্যাল মিডিয়ায় আধার নম্বর দিয়ে কাউকে চ্যালেঞ্জ করবেন না। এটা অনভিপ্রেত এবং একেবারেই করা উচিত নয়।’’ এ ধরনের কাজ করলে শাস্তিও হতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে ওই বিবৃতিতে। আধার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, আধার একটি বিশেষ নম্বর যা থেকে কারও পরিচয়ের বৈধতা নিশ্চিত করা যায়। বিবিধ পরিষেবা, সুযোগসুবিধা ও ভর্তুকির ক্ষেত্রে তা কাজে লাগে।

 

   ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার ডিরেক্টর ছিলেন আরএস শর্মা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আধার কার্ডের প্রস্তাব আনার সময় তিনি সবার আগে সম্মতির হাত তুলেছিলেন। আরএস শর্মা এখন টেলিফম রেগুলেটরি অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার প্রধান। কিন্তু এখনও আধার কার্ডের গুরুত্বের উপর তাঁর অগাধ ভরসা। আর সেই ভরসা ও বিশ্বাসের উপর আস্থা রেখেই আর এস শর্মা মনে মনে একখানা বড়সড় চ্যালেঞ্জ নেওয়ার পরিকল্পনা করে রেখেছিলেন। যেমন ভাবনা, তেমন কাজ। তিনি একশো শতাংশ নিশ্চিত, আধার কার্ডের নম্বর জানলেও কেউ আপনার কোনও ক্ষতি করতে পারবে না। নিজের এই ধারণা ও বিশ্বাসকেই তিনি জনস্বার্থে ছড়িয়ে দিতে চেয়েছিলেন। গত এক বছরে আধার কার্ডে প্রদত্ত তথ্যের নিরাপত্তা নিয়ে একের পর এক প্রশ্ন উঠেছে। আধার কার্ডে দেওয়া ব্যাক্তিগত তথ্য ফাঁস হওয়ার অভিযোগ উঠেছে বারবার। যদিও সরকার পক্ষের কেউই কখনও এই অভিযোগ সর্বোতভাবে মেনে নেননি। তাদের বরাবরের যুক্তি, আধার কার্ডের তথ্য ফাঁস হলে কারও কোনও ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। কিন্তু এস শর্মা চ্যালেঞ্জ করে যা ফেরত পেলেন তাতে আপনিও চমকে উঠতে পারেন। টুইটারে নিজের আধার কার্ড নম্বর দিয়ে চ্যালেঞ্জ করার পর নিজের ফোন ও আধার নম্বর ফেরত পেলেন তিনি। অনেকে আবার তাঁকে সতর্ক করলেন, এমন কাজ যেন তিনি ভবিষ্যতে না করেন। কেউ আবার বললেন, শর্মা যদি লিখিত আকারে কোনও পদক্ষেপ না নেওয়ার বিবৃতি দেন তা হলে আধার নম্বর মারফত তাঁর ব্যক্তিগত অনেক তথ্য সামনে তুলে ধরা যেতে পারে। মোবাইল নম্বর, প্যান কার্ড নম্বর, বাড়ির ঠিকানা, জন্ম তারিখ, ব্যক্তিগত ছবিসহ অনেক কিছুই টুইটার ব্যবহারকারীদের থেকে ফেরত পেলেন ট্রাই প্রধান।

 

   তবে চাপের মুখে তিনি অবশ্য মাথা নোয়ালেন না। উল্টে বললেন, ''ফোন নম্বর বা প্যান নম্বর কারও কোনও ক্ষতি করতে পারবে না। যেটাতে ক্ষতি হতে পারে এমন কিছু কেউ করতে পারে নাকি দেখি!'' সাহস হোক বা দুঃসাহস, শর্মা কিন্তু চালিয়ে খেলবেন বলেই ঠিক করেছিলেন। কেউ কেউ আবার তাঁকে ব্যক্তিগত তথ্য সোশ্যাল সাইটে তুলে দেওয়ার জন্য 'বোকা' বলেও ব্যঙ্গ করেছিলেন। শর্মার যুক্তি ছিল, ''এগুলো কোনও রাষ্ট্রীয় তথ্য নয়। আমার দেওয়া এই তথ্যগুলো কোনও গোপন তথ্য নয়।'' এরপর আসরে নেমে কার্যত শর্মাকেই নিশানা করলেন আধার কর্তৃপক্ষ। 

Share on Facebook
Share on Twitter
Please reload

জনপ্রিয় পোস্ট

I'm busy working on my blog posts. Watch this space!

Please reload

সাম্প্রতিক পোস্ট
Please reload

A N  O N L I N E  M A G A Z I N E 

Copyright © 2016-2019 Bodh. All rights reserved.

For reprint rights contact: bodhmag@gmail.com

Designed, Developed & Maintained by: Debayan Mukherjee

Contact: +91 98046 04998  |  Mail: questforcreation@gmail.com